মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারি ২০২২, ৪ মাঘ ১৪২৮, সকাল ৯:৫২
শিরোনাম :
মুলাদীতে শিক্ষার্থীদের অনুমতি ছাড়াই মাদরাসায় ভর্তির আবেদনের অভিযোগ উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে সরকার সরল উত্তরণ কৌশল প্রণয়ন করবে : প্রধানমন্ত্রী কনে দেখে ফেরার পথে প্রবাসী বরসহ নিহত-৩ এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশ ৩০ ডিসেম্বর মুলাদীতে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সপ্তাহ এবং বিজ্ঞান মেলার উদ্বোধন মুলাদীতে ইয়াবাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী আটক প্যাদারহাট ওয়াহেদিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি হলেন ওয়াহিবা আখতার শিফা প্রোটেক্টিভ লাইফ ও আইসিবি ক্যাপিটাল এর সাথে আইপিও সংক্রান্ত চুক্তি স্বাক্ষর পূর্বের স্থানে বিদ্যালয়ে নতুন ভবন নির্মাণের দাবিতে মানববন্ধন ‘এমভি অভিযান-১০’ লঞ্চে আগুনে প্রাণহানি ৪২, দগ্ধ ৭০: রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শোক

জামালপুরে বন্যার ভয়াবহ পানি বৃদ্ধি ॥ তীব্র খাদ্য সংকট

আব্দুল্লাহ আল লোমান, জামালপুর থেকে : পাহাড়ী ঢল ও অতি বর্ষণে জামালপুরে যমুনার পানি অস্বাভাবিক ভাবে বৃদ্ধি পেয়ে বন্যা পরিস্থিতি ভয়াবহ রুপ নিয়েছে। গত ২৪ ঘন্টায় বাহাদুরাবাদ ঘাট পয়েন্টে যমুনা নদীর পানি ১১সেন্টিমিটার বেড়ে বিপদসীমার ১২৬ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ১৫ জুলাই দুপুরে জামালপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) পানি পরিমাপক (গেজ রিডার) আব্দুল মান্নান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। দ্বিতীয় দফার বন্যায় জেলার ৭টি উপজেলা বন্যা কবলিত হয়ে পড়েছে। পানিবন্দি হয়ে পড়েছে প্রায় সাড়ে ৩লাখ মানুষ।

পানিবন্দি মানুষ পরিবার পরিজন ও গৃহপালিত গরু ছাগল নিয়ে নিরাপদ আশ্রয়ের সন্ধানে ছুটছে । বন্যাকবলিত লোকজনের আশ্রয়ের জন্য খোলা হয়েছে ৫১টি আশ্রয় কেন্দ্র। দুর্গতদের মাঝে দেখা দিয়েছে শুকনো খাবার ও বিশুদ্ধ পানির সংকট। বানভাসীদের পানিবাহিত রোগ দেখা দেওয়ায় ৩৯টি মেডিকেল টিম কাজ করছে বন্যা দুর্গত এলাকায়।

ইসলামপুর উপজেলার বেলগাছা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল মালেক বলেন, পানি বৃদ্ধি প্রথম দফার রেকর্ড ভেঙেছে। সর্বত্রই এখন পানি। কোথাও শুকনো জায়গা নেই। বন্যানিয়ন্ত্রণ বাঁধের উপর দিয়েও পানি প্রবাহিত হচ্ছে। রাস্তা-ঘাটসহ ঘরবাড়ি তলিয়ে গেছে। হাজার হাজার মানুষ চরম দুর্ভোগের মধ্যে পড়েছেন। ঘরবাড়ি ছেরে মানুষ আশ্রয়ে খুঁজে বেরিয়ে পড়েছেন। এসব এলাকায় এখন তীব্র খাদ্য সংকট দেখা দিয়েছে।

বন্যা দুর্গত এলাকার লোকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, করোনার প্রাদুর্ভাবে আগে থেকে কর্মহীন ছিল। তার সঙ্গে বন্যা যোগ হওয়ায় দুর্গত এলাকার মানুষ চরম দুর্ভোগের মধ্যে রয়েছেন। একই সঙ্গে ফের বন্যায় আক্রান্ত হওয়ায় চরভাবে বিপাকে পড়েছেন দুর্গত এলাকার মানুষ। তাঁদের ঘরে পর্যাপ্ত খাবার নেই। অনেকে খাবার অভাবে চিড়া-মুড়ি খেয়েও থাকছেন। দুর্গত এলাকার লোকজন আশ্রয় কেন্দ্র, সেতু ও উঁচু স্থান যেতে শুরু করেছেন। ঘরবাড়ী বানের পানিতে ভেসে যাওয়া অনেকেই ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে।

জেলার দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার ৯টি ইউনিয়নের মধ্যে ৮টি ইউনিয়ন বন্যায় কবলিত। বুধবার সকালে দেওয়াগঞ্জ পৌর এলাকায় গিয়ে দেখা যায়-যমুনার পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় পৌরসভার অধিকাংশ এলাকায় পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। সড়ক গুলোতে তিন থেকে চার ফুট পানি থাকায় যানবাহন চলাচল করতে পারছে না অধিকাংশ এলাকায়। পানি বন্দি হয়ে পড়ায় বন্ধ ঘোষনা করা হয়েছে উপজেলা পরিষদ ও ভূমি অফিসসহ কয়েকটি সরকারি দফতর।

কয়েকজন যানবাহন চালক জানান, হঠ্যাৎ করে বন্যার পানি আসায় রাস্তা ঘাট তলিয়ে গিয়েছে। তাই এখন গাড়ি না চালানোয় তাদের উপার্জন বন্ধ হয়ে গেছে। এভাবে চলতে থাকলে চরম দূর্ভোগ পড়তে হবে তাদের। তাই তারা দ্রুত প্রশাসনের কাছে ত্রাণের দাবি জানান।

জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা মো. নায়েব আলী জানান, জেলায় বন্যা কবলিত এলাকায় এখন পর্যন্ত ৩১০ মেক্ট্রিক টক জিআর চাল ও নগদ ১২ লাখ ৫০হাজার টাকা এবং শুকনো খাবার ৪হাজার প্যাকেট এবং গো-খাদ্য বাবদ দুই লাখ টাকা বিতরণ করা হচ্ছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন...

Developed by: Engineer BD Network