মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারি ২০২২, ৪ মাঘ ১৪২৮, সকাল ১০:৩৫
শিরোনাম :
মুলাদীতে শিক্ষার্থীদের অনুমতি ছাড়াই মাদরাসায় ভর্তির আবেদনের অভিযোগ উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে সরকার সরল উত্তরণ কৌশল প্রণয়ন করবে : প্রধানমন্ত্রী কনে দেখে ফেরার পথে প্রবাসী বরসহ নিহত-৩ এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশ ৩০ ডিসেম্বর মুলাদীতে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সপ্তাহ এবং বিজ্ঞান মেলার উদ্বোধন মুলাদীতে ইয়াবাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী আটক প্যাদারহাট ওয়াহেদিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি হলেন ওয়াহিবা আখতার শিফা প্রোটেক্টিভ লাইফ ও আইসিবি ক্যাপিটাল এর সাথে আইপিও সংক্রান্ত চুক্তি স্বাক্ষর পূর্বের স্থানে বিদ্যালয়ে নতুন ভবন নির্মাণের দাবিতে মানববন্ধন ‘এমভি অভিযান-১০’ লঞ্চে আগুনে প্রাণহানি ৪২, দগ্ধ ৭০: রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শোক

করোনার ভ্যাকসিন পেতে ৮ দফা পরিকল্পনা

গণবার্তা রিপোর্ট ॥ করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিন পেতে ৮ দফা পরিকল্পনা করেছে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়। সম্প্রতি স্বাস্থ্য সচিব আবদুল মান্নানের সভাপতিত্বে ‘বিশ্বব্যাপী বাজার থেকে ন্যায্য মূল্যে কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন সংগ্রহ’ শীর্ষক এক সভায় এসব সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।
সভায় নেওয়া ৮ দফা পরিকল্পনা হলো—ভ্যাকসিন তৈরির সঙ্গে-সঙ্গে গ্যাভির মাধ্যমে দেশে নিয়ে আসার দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া; কোভ্যাক্স ফ্যাসিলিটির পাশাপাশি নগদে ভ্যাকসিন কেনার বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়া; গ্যাভি, অক্সফোর্ডসহ ভ্যাকসিন তৈরির অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ করা; ভ্যাকসিনের ফান্ড সংগ্রহের জন্য পদক্ষেপ নেওয়া; সহজে দেশে ভ্যাকসিন প্রাপ্তির লক্ষ্যে রোডম্যাপ করা; বিদেশ থেকে ভ্যাকসিন আনার ব্যাপারে সম্পূর্ণ প্রসিডিউর সম্পর্কে আলোচনা করে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া; স্থানীয় উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানগুলোকে ভ্যাকসিন উৎপাদন/আমদানি প্রক্রিয়ার সঙ্গে যুক্ত করা এবং পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে ভ্যাকসিন আমদানি/উৎপাদন প্রক্রিয়ার সঙ্গে যুক্ত করা।
স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, মন্ত্রণালয় গ্যাভি কোভাক্স সুবিধা ও বিশ্বের আরও ১০টি সংস্থা থেকে ভ্যাকসিন আমদানির চেষ্টা করছে। কোভাক্স সুবিধার আওতায় বাংলাদেশের ২০ শতাংশ মানুষকে টিকা দেওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে।
প্রসঙ্গত, কোভাক্স গ্যাভি মহামারী প্রস্তুতি ইনোভেশনস ও ডব্লিউএইচও-এর সহযোগী হিসেবে কাজ করছে। সংস্থার উদ্দেশ্য হলো—ভ্যাকসিনের উন্নয়ন ও উৎপাদন ত্বরান্বিত করা। একইসঙ্গে বিশ্বের প্রতিটি দেশে সুষ্ঠু ও ন্যায়সঙ্গতভাবে প্রবেশের গ্যারান্টি নিশ্চিত করা। বাংলাদেশের পক্ষ থেকে গ্যাভির কাছে আগ্রহপত্র (ইওআই) পাঠানো হয়েছে। বাংলাদেশও প্রাপ্তির তালিকায় অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। সেপ্টম্বরে গ্যাভির বোর্ড মিটিংয়ে সদস্য দেশগুলোতে ভ্যাকসিন বিতরণ এবং এর দাম নির্ধারণের বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে। বাংলাদেশ গ্যাভির কো-ফাইন্যান্সার হিসেবে ভ্যাকসিন পাওয়ার যোগ্যতা রাখে।
সূত্র জানায়, সভায় করোনার ভ্যাকসিন তৈরি হলে বাংলাদেশে কখন এবং কিভাবে পাওয়া যাবে, সে সম্পর্কে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বিভিন্ন বিষয়ে জানতে চান।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে স্বাস্থ্যসচিব আবদুল মান্নান বলেন, ‘অর্থায়ন নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সঙ্গে যোগাযোগ হয়েছে। ভ্যাকসিন পাওয়ার ক্ষেত্রে গ্লোবালি বর্তমান অবস্থা এবং মাথাপিছু আয় কম হওয়ার কারণে ভ্যাকসিন পেতে বাংলাদেশ কোনো সুবিধা পাবে কি না, সে বিষয়ে যোগাযোগ করা হচ্ছে।’
স্বাস্থ্য সচিব আরও বলেন, ‘ভ্যাকসিন পাওয়ার ক্ষেত্রে প্রতিবেশী দেশগুলোর চেয়ে বাংলাদেশ পিছিয়ে থাকবে না। এছাড়া গ্যাভি কোভ্যাক্স ফ্যাসিলিটিজের সঙ্গে বাংলাদেশ যুক্ত হয়েছে। বাংলাদেশকে ভাকসিন পাওয়ার ক্ষেত্রে যোগ্য দেশ হিসেবে আবেদন করার অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। গ্যাভির মাধ্যম ছাড়াও সরাসরি অর্থায়ন করেও ভ্যাকসিন কেনার বিষয়ে সংশ্লিষ্ট সবাইকে কাজ করতে বলা হয়েছে। ’
এদিকে, করোনা প্রতিরোধে প্রয়োজনীয় অর্থের কোনো সমস্যা হবে না বলে এর আগে অর্থমন্ত্রী অ হ ম মুস্তফা কামাল ঘোষণা দিয়েছেন। এ প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় এবারের বাজেটে করোনা প্রতিরোধে প্রয়াজনীয় অর্থ বরাদ্দ রয়েছে।’
স্বাস্থ্যমন্ত্রীও এই বিষয়ে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেওয়া হবে বলে জানান।

সূত্র : রাইজিংবিডি ডটকম।

সংবাদটি শেয়ার করুন...

Developed by: Engineer BD Network