শনিবার, ২৪ জুলাই ২০২১, ৯ শ্রাবণ ১৪২৮, রাত ১:১১

দেওয়ানগঞ্জে ব্রহ্মপুত্র নদীর ভাঙ্গনের কবলে দেওয়ানগঞ্জ-খোলাবাড়ী সড়ক

এস এম দেলোয়ার হোসেন : জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার ব্রহ্মপুত্র পানি বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে ভাঙ্গনের কবলে পরেছে চিকাজানী ইউনিয়নের প্রধান সড়ক (দেওয়ানগঞ্জ-খোলাবাড়ী), বওলাতলী ঈদগা মাঠ, কবরস্থানসহ আশেপাশের বসতভিটা। এছাড়াও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, ফসলী জমি, মন্ডলবাজার এখন হুমকির মুখে।
ব্রহ্মপুত্রর ঢল উজান থেকে নেমে এসে চিকাজানী, চুকাইবাড়ী ইউনিয়ন হয়ে ভাটি এলাকার দিকে যাচ্ছে। যার ফলে পূর্ব পাড় দিয়ে প্রচণ্ড স্রোতে পানি প্রবাহিত হচ্ছে। এই স্রোতে ইউনিয়নের প্রধান সড়ক ভাঙ্গনের কবলে পড়েছে। এইভাবে ভাঙ্গন অব্যাহত থাকলে ইউনিয়নের একমাত্র ঈদগা মাঠ, কবরস্থান ও বাজারসহ বিলীন হয়ে যাবে।
স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, প্রতিবছর বন্যায় তীব্র ভাঙ্গনের সৃষ্টি হয়। ভাঙ্গনে এলাকার প্রায় বেশিরভাগ স্থাপনা ধ্বংস হয়ে পরেছে। বাকি রয়েছে অল্পকিছু বসতভিটা, কবরস্থান, বাজার, ঈদগা মাঠ। এইগুলো বিলীন হলে চিকাজানী ইউনিয়ন নিশ্চিহ্ন হয়ে পড়বে। গত কয়েক দিনের টানা বর্ষণ ও ভারতীয় পাহাড় থেকে নেমে আসা উজানী ঢলে ব্রহ্মপুত্রর নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়ে দেওয়ানগঞ্জ টু খোলাবাড়ী সড়কে ভাঙন শুরু হয়।
গত কয়েকদিনে নদী ভাঙনের ফলে উপজেলার সাথে এই অঞ্চলের একমাত্র যোগাযোগের এই সড়কটি সংকীর্ণ হয়ে পড়েছে ভাঙন অব্যাহত থাকলে দুই-একদিনের মধ্যে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যাবে। প্রতিদিন এই সড়ক দিয়ে ইউনিয়নের হাজার হাজার লোক চলাচল করে।
তারা আরো জানান, ভাঙন কবলিত এলাকার মানুষের নির্ঘুম রাত কাটছে। মূলত চারিদিক থেকে ব্রহ্মপুত্রর অব্যাহত ভাঙনের ফলে ক্রমে ছোট হয়ে যাচ্ছে উপজেলার চিকাজানী ইউনিয়ন। ভাঙ্গনে বিলীন হয়ে গেলে আমাদের আর কোনো পরিচয় থাকবে না। আমাদের জম্মস্থানের কোনো নাম ও চিহ্ন থাকবে না। মানচিত্র থেকে চিকাজানী বিলিন হয়ে গেলে আমারা পরিচয়হীন হয়ে যাবো। প্রতিবছর নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের আশ্বাসে আমরা ভুলে যায়। বন্যায় তারা সামান্য কিছু ত্রাণ বিতরণ করেই তাদের দায় সারা হয়ে যায়। এইবার অনুরুধ আমাদের কাছে আর ত্রান নিয়ে আসবেন না। আমরা এর স্থায়ী সমাধান চাই।
চিকাজানী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আশরাফ ইসলাম আক্কাস বলেন, আমি নিজ উদ্যোগে আমাদের দেওয়ানগঞ্জ-বকশীগঞ্জের মাননীয় সংসদ সদস্য আবুল কালাম আজাদকে ফোন করে বিষয়টি অবহিত করেছি। তিনি এই বিষয়ে দ্রুত পদক্ষেপ নিতে পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপসহকারি প্রকৌশলী আফিজুর রহমানকে বলেন। প্রকৌশলী আফিজুর রহমান সরজমিনে এসে দেওয়ানগঞ্জ-খোলাবাড়ী রাস্তা, বওলাতলী ঈদগা মাঠ ও কবরস্থান পরিদর্শন করেন। সেই সাথে তিনি ১০০০ ফোট কাজের একটি জরিপ করে নিয়ে যান।

Developed by: NEXTZEN LIMITED