রবিবার, ৩ জুলাই ২০২২, ১৯ আষাঢ় ১৪২৯, রাত ১১:৪৯
শিরোনাম :
আইডিআরএ চেয়ারম্যানকে বাংলাদেশ ন্যাশনাল ইন্স্যুরেন্সের ফুলেল শুভেচ্ছা করোনায় মৃত্যু কমলেও বেড়েছে শনাক্তের হার সিলেটে ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ি মেরামতে প্রধানমন্ত্রীর পাঁচ কোটি টাকা অনুদান আওয়ামী লীগ জনকল্যাণের রাজনীতি করে : ওবায়দুল কাদের পদ্মা সেতু নির্মাণের সব কৃতিত্ব বাংলাদেশের জনগণের : প্রধানমন্ত্রী আওয়ামী লীগ নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন করতে চায় : প্রধানমন্ত্রী আইডিআরএ চেয়ারম্যানকে প্রাইম লাইফের ফুলেল শুভেচ্ছা আইডিআরএ চেয়ারম্যান ও সদস্যবৃন্দকে বেঙ্গল ইসলামি লাইফের শুভেচ্ছা বাংলাদেশ ন্যাশনাল ইন্স্যুরেন্স’র ২৬তম এজিএম অনুষ্ঠিত ওয়ান ব্যাংকের আল নূর দ্বৈত মুদ্রা ডেবিট কার্ড উদ্বোধন
Logo

মুলাদীতে চরবাটামারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চলছে নানান অনিয়ম



মুলাদীতে চরবাটামারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চলছে নানান অনিয়ম
https://ganobarta.com/archives/7356

গণবার্তা রিপোর্ট: বরিশালের মুলাদীতে চরবাটামারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে নানান অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। ব্যবস্থাপনা কমিটি না করা, নির্ধারিত সময়ে শিক্ষককের উপস্থিত না থাকা, বিদ্যালয়ের কক্ষে নৈশ প্রহরীর দোকান, প্রধান শিক্ষকের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে প্রাধান্যসহ নানান অনিয়মের মধ্য দিয়ে চলছে বিদ্যালয়টি। তদারকি না থাকায় বিদ্যালয়ের শিক্ষার পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন শিক্ষার্থী অভিভাবকেরা।

জানা গেছে, ২০০৬ সালে প্রধান শিক্ষক মো. আতাউর রহমান উপজেলার বাটামারা ইউনিয়নের চরবাটামারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যোগদান করেন। তিনি যোগদানের পর থেকেই বিদ্যালয়টি অনিয়মের আখড়ায় পরিণত করেছেন। প্রধান শিক্ষক মো. আতাউর রহমানের বাটামারা রহিম বাজারে একটি মুদি মালামালের ব্যবসা রয়েছে। সকালে দোকানে গিয়ে তিনি নিজেই বিদ্যালয়ে দেরি করে যান। তাই অন্যান্য শিক্ষকরা যথাসময়ে বিদ্যালয়ে উপস্থিত হন না বলে জানিয়েছেন স্থানীয় শিক্ষার্থী অভিভাবকরা। ৬ বছর আগে বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির মেয়াদ শেষ হলেও পছন্দের সভাপতি-সদস্য না পাওয়ায় প্রধান শিক্ষক নতুন কোনো কমিটি গঠন করেননি। তাই বর্তমানে বিদ্যালয়ে কোনো ম্যানেজিং কমিটি নেই।

স্থানীয় ভাবে ম্যানেজিং কমিটি এবং শিক্ষা কর্মকর্তাদের তদারকি না থাকায় প্রধান শিক্ষক ও অন্যান্য শিক্ষকরা নিজেদের ইচ্ছেমতে বিদ্যালয়ে উপস্থিত হচ্ছেন। এতে বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতিও ক্রমান্বয়ে কমে যাচ্ছে। বিদ্যালয়ের নৈশ প্রহরী কাম দপ্তরি খোকন বিদ্যালয়ের সামনে একটি দোকান দিয়েছেন। বিদ্যালয় চলাকালীন খোকন তার দোকানের মালামাল নিয়ে ভবনের তিন তলার একটি কক্ষে নিয়ে যান। সেখানে শিক্ষার্থীদের অনেকটা বাধ্য করেই বিভিন্ন খাদ্য দ্রব্য বিক্রি করার অভিযোগ রয়েছে এই দপ্তরির বিরুদ্ধে। প্রধান শিক্ষক বিষয়টি দেখেও না দেখার ভান করছেন। এছাড়া প্রধান শিক্ষকের নিজের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের বেশি সময় দেওয়ায় অন্য কিছু খেয়াল করার সময় পাননা বলে দাবি করেছেন শিক্ষার্থী অভিভাবকরা। স্থানীয় অভিভাবকরা বিদ্যালয়ের শিক্ষার পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে দ্রুত প্রধান শিক্ষকের বদলীর দাবি জানিয়েছেন।

প্রধান শিক্ষক মো. আতাউর রহমান অনিয়মের বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, আমি যোগদানের পরে বিদ্যালয়টি সুন্দর ও সুশৃঙ্খলভাবে চলছে। বিদ্যালয়ের সকল শিক্ষকরা যথাসময়ে উপস্থিত হয়ে ভালোভাবে পাঠদান করছেন।

এব্যাপারে মুলাদী উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা এস এম জাকিরুল হাসান বলেন, চরবাটামারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের অনিয়মের বিষয়টি শুনেছি। বিষয়টি খোজ নিয়ে তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন...

Developed by: Engineer BD Network