রবিবার, ৩ জুলাই ২০২২, ১৯ আষাঢ় ১৪২৯, রাত ১১:১১
শিরোনাম :
আইডিআরএ চেয়ারম্যানকে বাংলাদেশ ন্যাশনাল ইন্স্যুরেন্সের ফুলেল শুভেচ্ছা করোনায় মৃত্যু কমলেও বেড়েছে শনাক্তের হার সিলেটে ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ি মেরামতে প্রধানমন্ত্রীর পাঁচ কোটি টাকা অনুদান আওয়ামী লীগ জনকল্যাণের রাজনীতি করে : ওবায়দুল কাদের পদ্মা সেতু নির্মাণের সব কৃতিত্ব বাংলাদেশের জনগণের : প্রধানমন্ত্রী আওয়ামী লীগ নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন করতে চায় : প্রধানমন্ত্রী আইডিআরএ চেয়ারম্যানকে প্রাইম লাইফের ফুলেল শুভেচ্ছা আইডিআরএ চেয়ারম্যান ও সদস্যবৃন্দকে বেঙ্গল ইসলামি লাইফের শুভেচ্ছা বাংলাদেশ ন্যাশনাল ইন্স্যুরেন্স’র ২৬তম এজিএম অনুষ্ঠিত ওয়ান ব্যাংকের আল নূর দ্বৈত মুদ্রা ডেবিট কার্ড উদ্বোধন
Logo

মেয়ে মানুষ সমাজের বোঝা নয় বরং আশির্বাদ



মেয়ে মানুষ সমাজের বোঝা নয় বরং আশির্বাদ
https://ganobarta.com/archives/6919

তৃপ্তি ভৌমিক : আপনি একই সাথে অনার্স-মাস্টার্স পাশ মেয়ে বিয়ে করতে চাইবেন, আবার তারে চাকরি করতে দিবেন না, তারে আবার কন্ট্রোল করতে চাইবেন। কথা না শুনলে বলবেন, “মেয়ে বেয়াদব, পরিবার থেকে কিছুই শেখায় নাই!” পরিবার থেকে শিক্ষা না পেলে তো এই মেয়ে মাস্টার্স পাশ করতো না ভাই! সে একজন শিক্ষিত মানুষ, আপনার ভুল হলে ধরিয়ে দিবে, পারিবারিক যে কোনো ইস্যুতে সে মতামত দিবে।

আপনার যদি ইচ্ছা থাকে এমন কাউকে বিয়ে করবেন, যে আপনারে দুই বেলা রান্না করে খাওয়াবে, আপনার কাপড় চোপড় ধুয়ে দিবে, আপনার বংশ রক্ষা করবে। তাহলে আপনি ভুল জায়গায় নক করেছেন । একজন বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া মেয়ে আপনার “বিয়ে করা সারভেন্ট” হবার জন্য এতো কষ্ট করে পড়ালেখা করে নাই। আপনার যদি “বিয়ে করা সারভেন্ট” লাগে আপনি গার্মেন্টসের “অসহায়-অভাবী” মেয়ে বিয়ে করতে পারেন, অথবা মফস্বলের গরীব মেয়েকে বিয়ে করতে পারেন, যারা ঠিকমত খেতে পারে না, পেটের দায়ে বাসা-বাড়িতে কাজ করে। তারা আপনার কাজও করে দিবে, বংশও রক্ষা করবে, নিজেরাও দুইবেলা খেতে পারবেন। তারা কখনো আপনার সাথে তর্ক করবে না, গুগল, মাইক্রোসফট কিংবা সিভিল সার্ভিসে চাকরি করার জন্য আপনার পরিবারের লোকদের সাথে ফাইট করবে না, পারিবারিক যে কোনো ইস্যুতে আপনি যে সিদ্ধান্ত দিবেন, সেটাকেই চূড়ান্ত হিসেবে মেনে নিবে।

যদি নিতান্তই “বাসার কাজকর্ম করার জন্য, বংশ রক্ষার জন্য” আপনার উচ্চশিক্ষিত মেয়ে দরকার হয়, তাহলে আপনি মেয়ের বাবা’কে ক্লিয়ারলি বলে দেন, “দেখেন ভাই, আমাদের বাসার কাজকর্ম করার জন্য আপনার মেয়েটাকে আমাদের দরকার, ওটাই ওর চাকরি। ওকে আর বাইরে চাকরি করতে হবে না!”

বিয়ের আগে বলবেন, “নাহ কোনো সমস্যা নেই, আপনার মেয়ে তো আমার-ই মেয়ে, ওকে আমরা পড়াশোনা করাবো, চাকরিও করবে, কোনো সমস্যা নেই!” – আবার বিয়ের পরে উল্টে যাবেন, পড়াশোনা কন্টিনিউ করতে চাওয়ার জন্য, চাকরি করতে চাওয়ার জন্য মেয়েটাকে শারীরিক এবং মানসিক নির্যাতন করবেন, তাহলে কিন্তু সেটা অন্যায় হবে!

মধ্যবিত্ত পরিবারের শিক্ষিত মেয়েরা এখন সমাজের শারীরিক এবং মানসিক নির্যাতন হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন...

Developed by: Engineer BD Network