শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ৩১ আশ্বিন ১৪২৮, সকাল ৬:০১
শিরোনাম :
বঙ্গবন্ধুর জন্ম হয়েছিলো বলেই আমরা বাংলাদেশ পেয়েছি – ড. হারুন অর রশিদ বিশ্বাস মুলাদীতে শারদীয় দুর্গোৎসবে আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় পুলিশের মতবিনিময় খুলনায় স্বদেশ ইসলামী লাইফের বিশেষ উন্নয়ন সভা ঢাকা এঞ্জেল লায়ন্স ক্লাবের উদ্যোগে বৃক্ষরোপন, খাদ্য ও মাস্ক বিতরন ৪ শতাংশ সুদে ঋণ দেবে লংকাবাংলা ফাইন্যান্স টাঙ্গাইল জেলা যুবলীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত মার্কেন্টাইল ইসলামী লাইফ ইন্স্যুরেন্স এর রাজশাহী বিভাগের উন্নয়ন সভা এনআরবি ইসলামিক লাইফের ব্যবসা উন্নয়ন সভা অনুষ্ঠিত মুজিববর্ষ বধির দাবা প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ এনআরবি গ্লোবাল লাইফ ইন্স্যুরেন্সের ৮ম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত

মুলাদীতে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে বিদ্যালয়ের অর্থ আত্নসাতের অভিযোগ

মুলাদী (বরিশাল) প্রতিনিধি : বরিশালের মুলাদীতে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে অর্থ আত্নসাতের অভিযোগ পাওয়া গেছে। উপজেলার কাজিরচর ইউনিয়নের দক্ষিণ কাজিরচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নুরুজ্জামান আনসারীর বিরুদ্ধে এই অভিযোগ ওঠে। তিনি বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতির স্বাক্ষর জাল করে সরকারি টাকা উত্তোলন করে আত্নসাত করেছেন বলে অভিযোগ করেছেন ম্যানেজিং কমিটির প্রাক্তন সদস্য ও সাবেক ইউপি সদস্য (মেম্বার) বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল বারেক সিকদার। এই ঘটনায় আব্দুল বারেক সিকদার ওই প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য গতকাল সোমবার জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।

আব্দুল বারেক সিকদার বলেন, ৬৬নং দক্ষিণ কাজিরচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির মেয়াদ ২০১৯ সালের ৩০ মার্চ শেষ হয়। প্রধান শিক্ষক নতুন কোনো কমিটি করেননি। পরবর্তীতে ২০১৯ সালের ৮ জুলাই মেয়াদ উত্তীর্ণ কমিটির সভাপতির স্বাক্ষর জাল করে বিদ্যালয় উন্নয়ন পরিকল্পনা (স্লিপ) এর ৪৪ হাজার টাকা উত্তোলন করে আত্নসাত করেছেন।

তিনি আরও বলেন, ২০২০ সালে বিদ্যালয়ে প্রাক-প্রাথমিক শ্রেণির জন্য ১০ হাজার টাকা এবং আন্তক্রীড়ার জন্য আড়াই হাজার টাকা বরাদ্দ হয়। বরাদ্দকৃত টাকার কোনো কাজ কিংবা ক্রীড়া সামগ্রী ক্রয় না করেই প্রধান শিক্ষক আত্নসাৎ করেছেন। ২০২০ সালে স্লিপের ৪৪ হাজার টাকা এবং ২০২১ সালের স্লিপের ৫০ হাজার টাকা উত্তোলন করে প্রধান শিক্ষক নামমাত্র কাজ করে বেশিরভাগ টাকা আত্নসাৎ করেছেন। চলতি বছর প্রধান শিক্ষক টাকা আত্নসাত করায় আগের বছরে প্রাক্তন সভাপতির স্বাক্ষর জাল করে টাকা উত্তোলনের বিষয়টি জানাজানি হওয়ায় জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তার কাছে অভিযোগ দিয়েছেন। করোনা মহামারিকালীন বিদ্যালয় বন্ধ থাকার সুবাদে বিদ্যালয়ের বিস্কুট শিক্ষার্থীদের মধ্যে বিতরণ না করে নিজের আত্নীয়-স্বজনদের মাঝে বিতরণের অভিযোগ রয়েছে ওই প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে।

বিদ্যালয়ের সাবেক সভাপতি আমিনুল ইসলাম জানান, মেয়াদ উত্তীর্ণের পরে তিনি কোনো কাগজে স্বাক্ষর করেননি। প্রধান শিক্ষক স্বাক্ষর জাল করেছেন কিনা বিয়ষটি তার জানা নাই।

এব্যাপারে প্রধান শিক্ষন নূরুজ্জামান আনছারী অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, বিদ্যালয়ের নামে দলিলকৃত জমি বিভিন্ন মানুষ দখল করে আছে। সেই জমি উদ্ধারের জন্য তিনি চেষ্টা করছেন। এতে একটি মহল ক্ষিপ্ত হয়ে তার বিরুদ্ধে অর্থ আত্নসাতের মিথ্যা অভিযোগ এনে হয়রানির চেষ্টা করছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন...

Developed by: Engineer BD Network