সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১১ আশ্বিন ১৪২৯, রাত ১:৪৮
শিরোনাম :
বিশ্বশান্তি প্রতিষ্ঠা এবং উন্নত দেশ গড়ার প্রত্যয়দীপ্ত ভাষণ দেওয়ায় শেখ হাসিনাকে আওয়ামী লীগের অভিনন্দন  করোনায় আরও ৪ জনের মৃত্যু  রাজনীতির মাঠে স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি থাকতে অস্থিরতা-সংঘর্ষ-সংঘাত-অশান্তির অবসান হবে না : ইনু স্বাধীনতা বিরোধীরা এখনও ষড়যন্ত্র করছে : মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী যুদ্ধ বন্ধ করুন : জাতিসংঘে প্রধানমন্ত্রী জাতির পিতা যুদ্ধবিধ্বস্ত বাংলাদেশ পুনর্গঠনে যুব সমাজকে ব্যাপকভাবে সম্পৃক্ত করেন : আবুল হাসানাত আবদুল্লাহ্ রোহিঙ্গাদের জন্য আরও ১৭০ মিলিয়ন ডলার দেবে যুক্তরাষ্ট্র : ব্লিঙ্কেন বিশ্ব শান্তি নিশ্চিত করার ওপর গুরুত্ব দিয়ে জাতিসংঘে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী জাতিসংঘে পদ্মা সেতুর ওপর আলোকচিত্র প্রদর্শনী পরিদর্শন প্রধানমন্ত্রীর ১৪ দলীয় জোট সক্রিয় ও সম্প্রসারণ করতে হবে : ইনু
Logo

এবারেই প্রথম হজে নিরাপত্তার দায়িত্বে সৌদি নারী সেনা



এবারেই প্রথম হজে নিরাপত্তার দায়িত্বে সৌদি নারী সেনা
https://ganobarta.com/archives/5601

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : এবারের হজে হাজিদের নিরাপত্তার দায়িত্বে ছিল সৌদি আরবের নারী সেনাদের একটি দল। এবারই প্রথম হাজিদের নিরাপত্তায় মক্কা ও মদিনায় নারী সেনাদের নিয়োগ দিয়েছিল সৌদি সরকার। গত এপ্রিল থেকে দেশটিতে নিরাপত্তা রক্ষার কাজে নিয়োজিত রয়েছেন নারী সেনারা।

নারী সেনাদের একজন মোনা। তিনি খাকি রঙের সামরিক পোশাক, লম্বা জ্যাকেট, ঢিলেঢালা ট্রাউজার, মাথায় কালো ক্যাপ আর কালো কাপড়ে মুখ ঢেকে এবারের হজের সময় হাজিদের নিরাপত্তার দায়িত্ব সামলেছেন।

মোনা কাজ করেন সেনাবাহিনীতে। বাবার অনুপ্রেরণাতেই মোনার সেনাবাহিনীতে যোগ দেয়া। আর পবিত্র শহর মক্কায় হজের নিরাপত্তার দায়িত্ব নেয়া সৌদি আরবের প্রথম নারী সেনা দলেরও একজন তিনি।

মোনা পালা করে মক্কার গ্র্যান্ড মসজিদে টহল দিয়ে হাজিদের নিরাপত্তার দায়িত্ব সামলেছেন। মসজিদের সামনে দাঁড়িয়ে মোনা বলেন, ‘আমার বাবাও সেনাবাহিনীতে ছিলেন। তিনি মারা গেছেন। সেনাসদস্য হতে তিনি আমাকে অনুপ্রেরণা জুগিয়েছেন। আমি তাঁর পদাঙ্ক অনুসরণ করে পবিত্র এই জায়গায় দায়িত্ব পালন করেছি। হাজিদের জন্য কাজ করতে পারাটা খুবই সম্মানের।’

সৌদি আরবকে রক্ষণশীল সমাজ থেকে ধীরে ধীরে বের করে আনার উদ্যোগ নিয়েছেন যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান। তিনি দেশে সামাজিক ও অর্থনৈতিক সংস্কারের কাজ শুরু করেছেন। রক্ষণশীল মুসলিম রাষ্ট্রে বৈচিৎর‌্য এনে এর আধুনিকায়ন করা এবং বিদেশি বিনিয়োগ আকৃষ্ট করাই এর উদ্দেশ্য।

যুবরাজ তার ‘ভিশন ২০৩০’ শীর্ষক এই সংস্কার পরিকল্পনার আওতায় সৌদি নারীদের জীবন বদলে দেয়া কিছু উদ্যোগ নিয়েছেন।

অভিভাবকের অনুমতি ছাড়া নারীদের ভ্রমণ করা, গাড়ি চালানো, স্টেডিয়ামে গিয়ে খেলা দেখার মতো আরও বেশকিছু ক্ষেত্রে সৌদি আরবে নারী অধিকার প্রতিষ্ঠা করেছেন যুবরাজ।

Developed by: Engineer BD Network