মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারি ২০২২, ৪ মাঘ ১৪২৮, সকাল ১০:০২
শিরোনাম :
মুলাদীতে শিক্ষার্থীদের অনুমতি ছাড়াই মাদরাসায় ভর্তির আবেদনের অভিযোগ উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে সরকার সরল উত্তরণ কৌশল প্রণয়ন করবে : প্রধানমন্ত্রী কনে দেখে ফেরার পথে প্রবাসী বরসহ নিহত-৩ এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশ ৩০ ডিসেম্বর মুলাদীতে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সপ্তাহ এবং বিজ্ঞান মেলার উদ্বোধন মুলাদীতে ইয়াবাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী আটক প্যাদারহাট ওয়াহেদিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি হলেন ওয়াহিবা আখতার শিফা প্রোটেক্টিভ লাইফ ও আইসিবি ক্যাপিটাল এর সাথে আইপিও সংক্রান্ত চুক্তি স্বাক্ষর পূর্বের স্থানে বিদ্যালয়ে নতুন ভবন নির্মাণের দাবিতে মানববন্ধন ‘এমভি অভিযান-১০’ লঞ্চে আগুনে প্রাণহানি ৪২, দগ্ধ ৭০: রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শোক

আপত্তিকর ছবি প্রকাশ করে কারাগারে সাংবাদিক

গণবার্তা রিপোর্ট: বেসরকারি টেলিভিশন এটিএন নিউজের এক উপস্থাপিকার আপত্তিকর ছবি প্রকাশ করে সম্মানহানির অভিযোগে করা মামলায় ওই টেলিভিশনের জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক ইমরান হোসেন সুমনের জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন আদালত।

বুধবার (২২ জুলাই) একদিনের রিমান্ড শেষে সুমনকে ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করা হয়। মামলার তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত তাকে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ডিবি পুলিশের সোশ্যাল মিডিয়া ক্রাইম অ্যান্ড ইনভেস্টিগেশন টিমের পরিদর্শক কাজী মো. নাসিরুল আমীন।

অপরদিকে তার আইনজীবী তুহিন হাওলাদার জামিনের আবেদন করেন। উভয় পক্ষের শুনানি শেষ ঢাকা মহানগর হাকিম মঈনুল ইসলাম তার জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। পল্লবী থানার আদালতের সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা পুলিশের উপ-পরিদর্শক মোহাম্মদ সেলিম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে সোমবার (২০ জুলাই) ঢাকা মহানগর হাকিম আতিকুল ইসলাম তার এক দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। রোববার (১৯ জুলাই) রাতে হাতিরঝিল এলাকা থেকে সুমনকে গ্রেফতার করে ডিবির সিরিয়াস ক্রাইমইনভেস্টিগেশন বিভাগ।

ডিবির উপ-কমিশনার (ডিসি-সিরিয়াস ক্রাইম) মীর মোদাচ্ছের হোসেন বলেন, এটিএন নিউজের এক সহকর্মীর করা মামলায় আমরা একজন আসামিকে গ্রেফতার করেছিলাম। সেই আসামি আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে ইমরান হোসেন সুমনের নাম উঠে আসে।

আপত্তিকর অশ্লীল ছবি প্রকাশ করায় ১২ জুলাই ভুক্তোগী ওই নারী বাদী হয়ে পর্নোগ্রাফি ও ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলায় ২০১২ সালের পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইনের ৮ (৩) ও ২০১৮ সালের ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ২৫/২৯ ধারা দেয়া হয়েছে।

ওই উপস্থাপিকা বলেন, অজ্ঞাত ব্যক্তি আমার পরিচয় গোপন করে আমার স্বামীর ছবি ব্যবহারপূর্বক ফেইক আইডি প্রস্তুত করে ইলেক্ট্রনিক ডিজিটাল ডিভাইসের মাধ্যমে আমার পরিবারকে সামাজিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন করার উদ্দেশ্যে মিথ্যা বানোয়াট তথ্য প্রচার ও প্রকাশ করে সম্মানহানি করেছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন...

Developed by: Engineer BD Network