বুধবার, ৮ ডিসেম্বর ২০২১, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, সকাল ১০:২২

দেশের ১১ নদীর পানি বিপদসীমার ওপরে

গণবার্তা রিপোর্ট: বন্যা পূর্বাভাস ও সকর্তীকরণ কেন্দ্র জানিয়েছে দেশের ১১টি নদীর ১৫টি পয়েন্টের পানি বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এতে করে দেশের উত্তর-পূর্বাংশের কুড়িগ্রাম, গাইবান্ধা, বগুড়া, জামালপুর, সিরাজগঞ্জ ও টাঙ্গাইল জেলার অনেক এলাকা প্লাবিত হয়েছে। অন্যদিকে সিলেট ও সুনামগঞ্জও বন্যার পানিতে প্লাবিত হয়েছে। আগামী ২৪ ঘণ্টায় উত্তর-পূর্বাংশের বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত থাকলেও সিলেট ও সুনামগঞ্জের অবস্থা কিছুটা উন্নতি হতে পারে
বন্যা পূর্বাভাস ও সকর্তীকরণ কেন্দ্র জানায় যে ১৫ পয়েন্ট দিয়ে পানি বিপদসীমার ওপরে প্রবাহিত হচ্ছে সেগুলো হলো ধরলা নদীর কুড়িগ্রাম পয়েন্ট, ঘাগট নদীর গাইবান্ধা পয়েন্ট, ব্রহ্মপুত্র নদীর নুনখাওয়া ও চিলমারী পয়েন্ট, যমুনা নদীর ফুলছড়ি, বাহাদুরাবাদ, সারিয়াকান্দি, কাজীপুর, সিরাজগঞ্জ পয়েন্ট, আত্রাই নদীর বাঘাবাড়ি পয়েন্ট, ধলেশ্বরীর এলাসিন, পদ্মার গোয়ালন্দ, সুরমার কানাইঘাট ও সুনামগঞ্জ পয়েন্ট এবং পুরাতন সুরমার দিরাই এলাকা।

এদিকে বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের নির্বাহী প্রকৌশলী আরিফুজ্জামান ভুইয়া গণমাধ্যমকে বলেন, এখন যে পরিস্থিতি আছে তা আগামী ৪-৫ দিন প্রায় একই রকম থাকবে। এরপর আবার বৃষ্টি শুরু হলে পানি বাড়তে পারে। এতে দেশের উত্তর-পূর্ব ও মধ্যাংশের যেসব এলাকা এখন প্লাবিত, সেখানে পানির উচ্চতা বাড়বে এবং নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হওয়ার শঙ্কা রয়েছে।

তিনি আরও বলেন, এরমধ্যে সিলেট ও সুনামগঞ্জের পরিস্থিতি ভালো হবে। তবে আগামী সপ্তাহে ওই এলাকাগুলো আবার প্লাবিত হতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেন তিনি।

সতর্কীকরণ কেন্দ্রের পূর্বাভাসে আরো বলা হয়, ব্রহ্মপুত্র-যমুনার পানি সমতল স্থিতিশীল আছে, যা আগামী ৪৮ ঘণ্টা পর্যন্ত অব্যাহত থাকতে পারে। গঙ্গা-পদ্মার পানি সমতল বৃদ্ধি পাচ্ছে, যা আগামী ৪৮ ঘণ্টা পর্যন্ত অব্যাহত থাকতে পারে। আবার মেঘনা অববাহিকার প্রধান নদীগুলোর পানি সমতল কমছে, যা আগামী ৪৮ ঘণ্টা পর্যন্ত অব্যাহত থাকতে পারে।

সংবাদটি শেয়ার করুন...

Developed by: Engineer BD Network