শনিবার, ২৪ জুলাই ২০২১, ৯ শ্রাবণ ১৪২৮, রাত ১:৫২

মুলাদীতে শুভ্রতা ছড়িয়ে বিদায়ের বেলা সকলের ভালোবাসায় সিক্ত হলেন ইউএনও শুভ্রা দাস

বিশেষ প্রতিনিধি ॥ সরকারি দায়িত্ব পালনের মাধ্যমে মুলাদী উপজেলায় শুভ্রতা ছড়িয়ে বিদায়ের বেলা সকলের শ্রদ্ধা আর ভালোবাসায় সিক্ত হলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার শুভ্রা দাস। বরগুনা জেলার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক হিসেবে পদোন্নতি পেয়ে উপজেলা নির্বাহীর কর্মময় পদ থেকে বিদায়ের সময় মুলাদী উপজেলার বিভিন্ন সংগঠন, শ্রেণি পেশার মানুষের সংবর্ধণা ও ভালোবাসা নিয়ে নতুন কর্মস্থলের উদ্দেশ্যে পাড়ি জমাতে সক্ষম হয়েছেন। সংবর্ধণা অনুষ্ঠানে একাধিক আলোচক তাদের অনুভূক্তি ব্যক্ত করতে গিয়ে এই সফল উপজেলা নির্বাহী অফিসার শুভ্রা দাসের সুস্থতা, আগামী কর্মময় এবং পারিবারিক জীবনের সাফল্য ও সমৃদ্ধির প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন।

      

উপজেলা নির্বাহী অফিসার শুভ্রা দাস ২০২০ সালের জানুয়ারি মাসে মুলাদী উপজেলায় যোগদান করেন। যোগদানের পরই স্বাধীন দেশে জন্ম নেয়া দেশপ্রেমে উদ্ভুদ্ধ মমতাময়ী এই সরকারি কর্মকর্তা সংবাদকর্মী ও বিভিন্ন পেশার মানুষের সাথে মতবিনিময় কালে তিনি বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা বিনির্মানে দেশ সেবার ব্রত নিয়ে মানুষের কল্যাণে সকলকে নিয়ে কাজ করার অঙ্গীকার ব্যক্ত করে মুজিব শতবর্ষের ক্ষণগণনার আনুষ্ঠানিক ভাবে উদ্ভোধন করেন। পরবর্তীতে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যবর্তন দিবসের জমকালো অনুষ্ঠান শেষে নকল মুক্ত সুষ্ঠু সুন্দর পরিবেশে ২০২০ সালের এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা উপহার দিয়ে সকলের প্রশংসা অর্জন করেন তিনি। জাতীয় শিশু দিবসের সফল অনুষ্ঠান শেষে বৈশ্বিক মহামারি করোনার ছোবলে মহান স্বাধীনতা দিবসের বড়প্রস্তুতির আনুষ্ঠানিকতা ছোট পরিসরে শেষ করে করোনা মোকাবেলায় মাঠে নামেন তিনি।

অপরিচিত বৈশ্বিক মহামারি করোনা পরিস্থিতি সামাল দিয়ে সরকারের ঘোষিত কর্মসূচি বাস্তবায়ন ও দরিদ্রদের পাশে দাড়ানোর লক্ষ্যে সর্বাত্বক কাজ করেন চৌকস অফিসার শুভ্রা দাস। জনসচেতনতায় মাইকিং, প্রচার প্রচারণা, বিভিন্ন মাধ্যমে মানুষকে সচেতন করে মুলাদী উপজেলায় করোনা ভাইরাস ব্যাপক ভাবে ছড়িয়ে পড়া রোধ করতে সক্ষম হয়েছেন। সম্মূখ যোদ্ধা হিসেবে পথে প্রান্তরে কাজ করেছেন। করোনায় ক্ষতিগ্রস্থ মানুষের খাদ্য সহায়তা জীবন ও জীবিকা নিশ্চিত করতে গিয়ে স্বপরিবারে করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন শুভ্রা দাস। স্বপরিবারে করোনায় আক্রান্ত হয়েও দমে যাননি তিনি। করোনা জয় করে পুনঃরায় মুলাদী উপজেলার সাধারণ মানুষের কল্যানে কাজ শুরু করেন এবং প্রত্যন্ত অঞ্চলে ঘুরে ত্রাণ বিতরণসহ প্রয়োজনীয় কাজ করেন তিনি। ঘূর্ণিঝড় আমফান মোকাবিলায় উপজেলা প্রশাসন ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করে বড় ধরণের জানমালের ক্ষয়ক্ষতির হাত থেকে উপজেলাবাসীকে রক্ষা করেছেন।

        

    

শিক্ষা ও শিক্ষার্থীদের কল্যাণে ২০২০ সালের এসএসসি ও সমমান পরীক্ষা নকলমুক্ত পরিবেশে অনুষ্ঠিত করা, ভূমিহীনদের জমি বরাদ্দ দেওয়ার লক্ষ্যে সরকারি খাস জমি হতে অবৈধ দখল উদ্ধার করা, করোনা ছড়িয়ে পড়া রোধে লকডাউন নিশ্চিত করা, নদী ভাঙ্গন রোধ ও বন্যা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধ করতে গিয়ে অনেকের বিরাগ ভাজন হলেও প্রকৃতপক্ষে মুলাদী উপজেলাবাসীর কল্যাণেই এ সকল কাজ করেছেন বলে মন্তব্য করেছেন জনপ্রতিনিধিরা।

করোনায় কর্মহীন মানুষকে খাদ্য সহায়তা পৌছানো, জীবানু মুক্ত স্প্রে করেছেন নিজ হাতে, ব্রজপাত নিরোধে ১ লক্ষ তালগাছ রোপনে সহায়তা, ছিন্নমূল শিশুদের পাশে দাড়ানো, ভিক্ষুকদের পূণর্বাসনে দোকানঘর ও ভ্যান বিতরণ, শিশুদের সৃজনশীল করতে রঙ তুলিতে বঙ্গবন্ধু কর্মসূচির আয়োজনে সহযোগিতা, উপজেলা শিল্প কলা একাডেমির উন্নয়নের সার্বিক সহযোগিতা, সুস্থ সুন্দর পরিবেশে মুলাদী পৌরসভা নির্বাচন সম্পন্ন, সরকারি চাল বিতরণে অনিয়ম রোধে প্রত্যক্ষ তদারকি, নদী দ্বারা বিচ্ছিন্ন জনপদের মানুষের দোরগোড়ায় উপজেলা প্রশাসের সেবা দ্রুত পৌছে দিতে স্পিডবোর্ডের ব্যবস্থা, মুজিবশতবর্ষে বৃক্ষরোপন কর্মসূচির যথাযথ বাস্তবায়নসহ বিভিন্ন দপ্তরে এনেছেন কর্মচাঞ্চল্য। নিজের কাজ এবং কাজের দ্রুততায় শতভাগ সাফল্যে উপজেলা নির্বাহী অফিসার শুভ্রা দাস নিজেকে নিয়ে গেছেন এক অনন্য উচ্চতায়। কর্মস্পৃহা ও কর্মচাঞ্চল্যের জন্যই তিনি পদোন্নতি পেয়েছেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক হিসেবে।

  

উপজেলাবাসীর বিনোদনে শিল্পকলা একাডেমির উন্নয়নের পাশাপাশি স্বাস্থ্য বিধি নিশ্চিত করে বেশ কয়েকটি সফল সাংস্কৃতি অনুষ্ঠান উপহার দিয়েছেন সাংস্কৃতিকমনা ব্যাক্তিত্ব শুভ্রা দাস। উপজেলার সামাজিক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ইয়ুথ পাওয়ার সোসাইটিকে সাথে নিয়ে ছিন্নমূল শিশুদের কল্যানে কাজ করেছেন এই মমতাময়ী অফিসার। স্বল্প সময়ে ভয়াবহ করোনা সংকটকালীন পরিস্থিতিতেও নিজের কাজে সফলতার সাক্ষর রাখতে সক্ষম হয়েছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার শুভ্রা দাস।

   

 
মুলাদী উপজেলা পরিষদ ও উপজেলা প্রশাসন আয়োজিত শুভ্রা দাসের পদোন্নতি জনিত বিদায় সংবর্ধণা অনুষ্ঠানে উপজেলা পরিষদ, উপজেলা প্রশাসনসহ উপজেলার বিভিন্ন সংগঠন ও শ্রেণি পেশার মানুষে সম্মাণনা ক্রেস্ট ও ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান। সংক্ষিপ্ত পরিসরে আয়োজিত অনুষ্ঠানে বক্তরা অনুভূতি ব্যক্ত করতে গিয়ে শুভ্রা দাসের কর্মময় স্মৃতি তুলে ধরেন। শুভ্রা দাস নিজেও তার বক্তব্যে মুলাদী উপজেলার সর্বস্তরের মানুষের ভালোবাসা ও কাজে সর্বাত্নক সহযোগিতার কথা তুলে ধরে আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন।
সদ্য পদোন্নতিপ্রাপ্ত অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক শুভ্রা দাস রবিবার (২ মে) অফিসিয়াল ফেসবুক স্ট্যাটাসে নিজের বিদায় বেলা নিজের অনুভুতি তুলেধরেছেন। নিচে তা হুবহু তুলে ধরা হলো:

সুপ্রিয় মুলাদীবাসী,

আমার যাবার বেলা উপস্থিত। বিগত প্রায় দেড় বছর আপনাদের সাথে আনন্দ বেদনা ভাগাভাগি করে নিয়েছি। এই ভাগাভাগির মধ্যে কখন যে মুলাদী নিজের অতি আপন হয়ে উঠেছে বুঝতেই পারিনি।

আমি মুলাদী তে যোগদানের কিছুদিন পর থেকেই করোনাভাইরাস মহামারীর কারণে বাংলাদেশসহ সারাবিশ্ব বিপর্যস্ত। এই মহামারীর মধ্যে লকডাউন নিশ্চিত ও ত্রাণ বিতরণ করতে যেয়ে ছুটে বেড়াতে হয়েছে মুলাদীর প্রত্যন্ত অঞ্চলে। এসময় লক্ষ্য করেছি মুলাদীর অপার প্রাকৃতিক সৌন্দর্য, সরল স্বাভাবিক জীবন যাপন এবং অফুরন্ত সম্ভাবনা।

এসএসসি পরীক্ষা ২০২০ নকলমুক্ত পরিবেশে অনুষ্ঠিত করা, সরকারি খাস জমি হতে অবৈধ দখল উদ্ধার করা, লকডাউন নিশ্চিত করা, অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধ করতে যেয়ে অনেকের বিরাগভাজন হতে হয়েছে।

কিন্তু এসকল তিক্ত কাজ আশাকরি মুলাদীবাসীর জন্য সুদুরপ্রসারি সুমিষ্ট ফল বয়ে আনবে।

মুলাদী আমার কর্মকালে এ উপজেলার সম্মানিত জনপ্রতিনিধিবৃন্দ, বিভিন্ন দপ্তরের সরকারি / বেসরকারি কর্মকর্তাবৃন্দ, আমার প্রিয় সহকর্মীবৃন্দ, ব্যবসায়ীসমাজ, সম্মানিত শিক্ষকমন্ডলী, সুশীল সমাজের ব্যক্তিবর্গ, প্রিয় কলমযোদ্ধা সাংবাদিকবৃন্দ, জাতির সূর্য সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধাগণ ও আপামর জনসাধারণসহ যাদের অকুণ্ঠ সমর্থন ও ভালোবাসা পেয়েছি, তাদের প্রতি রইল আমার বিনম্র শ্রদ্ধা ও আন্তরিক কৃতজ্ঞতা।

আমার পরবর্তী পদ ও কর্মস্থল অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক, জেলা প্রশাসকের কার্যালয়, বরগুনা।

অপার সম্ভাবনাময় মুলাদী ভালো থাকুক।

দেখা হবে করোনামুক্ত নতুন সময়ে ও নতুন পরিসরে।

শুভ্রা দাস

উপজেলা নির্বাহী অফিসার

মুলাদী, বরিশাল।

Developed by: NEXTZEN LIMITED