শনিবার, ২৪ জুলাই ২০২১, ৯ শ্রাবণ ১৪২৮, রাত ১:১৫

মুলাদীতে নির্বাচন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে বহিরাগতদের মাঝে সাংবাদিক পরিচয়পত্র বিতরনের অভিযোগ

মুলাদী (বরিশাল) প্রতিনিধি ॥ মুলাদীতে নির্বাচন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে বহিরাগতদের মাঝে নির্বাচন কমিশনের সাংবাদিক পরিচয়পত্র বিতরণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। উপজেলা নির্বাচন অফিসার শওকত আলী অর্থের বিনিময়ে বহিরাগতদের হাতে সাংবাদিক পরিচয়পত্র তুলে দিয়েছেন। তাদের মোটরসাইকেল চলাচলের জন্য স্টিকারও বিতরণ করেছেন তিনি। উপজেলার প্রকৃত সাংবাদিকদের তিনি ফটোকপি করে পরিচয়পত্র ও স্টিকার বিতরণ করেছেন। কতজন সাংবাদিককে পরিচয়পত্র বিতরণ করা হয়েছে তা জানেন না নির্বাচন অফিসার।

উপজেলা নির্বাচন অফিসার বিতরণকৃত কোনো কার্ডে নম্বর দেয়া হয়নি। যাদের পরিচয়পত্র ও স্টিকার বিতরণ করেছেন তাদের অধিকাংশদের কাছ থেকে পরিচয়পত্র, এনআইডি, পরিচয়পত্রের মেয়াদ আছে কিনা যাচাই করা হয়নি। মোটরসাইকেলে ব্যবহার করার জন্য সরবরাহকৃত কোনো স্টিকারের গাড়ির নম্বর লিখে দেননি নির্বাচন কর্মকর্তা। এসব স্টিকার যে কেউ তাদের গাড়িতে লাগিয়ে অপব্যবহার করতে পারেন বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থীরা।

জনপ্রতিনিধিরা জানান, নির্বাচন উপলক্ষে উপজেলা নির্বাচন অফিসার উপজেলায় কমপক্ষে ৫শত জনকে সাংবাদিক পরিচয়পত্র ও স্টিকার বিতরণ করেছেন। বেশিরভাগ বহিরাগতদের এ পরিচয়পত্র দেওয়া হয়েছে। রবিবার বিকালে ৫শতাধিক মোটরসাইকেলে সাংবাদিক পরিচয় স্টিকার দেখা গেছে। এছাড়া অনেক মোটরসাইকেলে প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী, নির্বাচনী এজেন্টের স্টিকারও দেখা গেছে। যারা প্রার্থী নয় তাদের মোটরসাইকেলে প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী ও নির্বাচনী এজেন্টের স্টিকার থাকায় এর অপব্যবহার হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

মুলাদী প্রেসক্লাবের সভাপতি আলমগীর হোসেন সুমন জানান, প্রেসক্লাব থেকে ১৫জন সংবাদকর্মীদের জন্য সাংবাদিক পরিচয়পত্র ও স্টিকারের জন্য আবেদন করা হয়েছিলো। এদের সবাইকে ফটোকপি পরিচয়পত্র ও ফটোকপি স্টিকার দেওয়া হয়েছে। যারা সংবাদপত্রের সাথে জড়িত নয় তাদেরকে মূল পরিচয়পত্র ও স্টিকার দিয়েছেন নির্বাচন অফিসার। নির্বাচন অফিসার অর্থের বিনিময়ে বহিরাগতদের মাঝে পরিচয়পত্র ও স্টিকার বিতরণ করেছেন।

মাইটিভি প্রতিনিধি রাকিব হোসেন জানান, সাংবাদিকদের জন্য নির্বাচন কমিশন থেকে পরিচয়পত্র ও স্টিকার দেওয়া হয়েছে। নির্বাচন অফিসার সেগুলো বহিরাগতদের মাঝে বিতরণ করেছেন। তাকেও প্রথমে স্ক্যানকৃত স্টিকার ও পরিচয়পত্র প্রদান করা হয়েছিলো। পরে তিনি চ্যালেঞ্জ করায় মূল পরিচয়পত্র ও স্টিকার দেন নির্বাচন অফিসার।

উপজেলা নির্বাচন অফিসার শওকত আলী জানান, নির্বাচন কমিশন থেকে সাংবাদিকদের জন্য পরিচয়পত্র ও স্টিকার সরবরাহ না করায় তাদের ফটোকপি/স্ক্যান কপি দেওয়া হয়েছে।

জেলা আঞ্চলিক নির্বাচন অফিসার মোঃ নূরুল আলম জানান, নির্বাচন কমিশন থেকে সাংবাদিকদের জন্য সীমিত পরিচয়পত্র ও স্টিকার সরবরাহ করা হয়েছে। যদি প্রয়োজন হয় তবে নির্বাচন অফিসার কিংবা রির্টানিং অফিসার ফটোকপি কিংবা স্ক্যান কপি প্রদান করতে পারেন।

Developed by: NEXTZEN LIMITED